সর্বশেষ :

সাদা পাথর পর্যটনকেন্দ্র।

শীতকালে বিকেল চারটার মধ্যে পর্যটকদের ছাড়তে হবে সাদা পাথর এলাকায়

সিলেট প্রতিনিধি :

জল, পাহাড় আর পাথরের এক অপূর্ব ল্যান্ডস্ক্যাপ সিলেটের কোম্পানীগঞ্জের নতুন পর্যটনকেন্দ্র সাদা পাথর এলাকা। প্রতিবছর শীত মৌসুমে এখানে পর্যটকদের ঢল নামে। কিন্তু করোনা মহামারির কারণে এবছর পর্যটকদের অবাধ বিচরণের লাগাম টেনে ধরতে ভারতীয় সীমান্তবর্তী সাদা পাথর এলাকায় পর্যটকদের যাতায়াতে সময় নির্ধারণ করে দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। সীমান্ত এলাকার পরিস্থিতি ও শীতকালে করোনা সংক্রমণ এড়াতে প্রতিদিন বিকেল চারটার পর আর কোনো নৌকা সাদা পাথর এলাকায় যাতায়াত করতে পারবে না।

সাদা পাথর পর্যটনকেন্দ্র।

১৩ জুন (শুক্রবার) বিকেল চারটা থেকে এই নির্দেশনা কার্যকর করতে সাদা পাথর নৌপথ অভিমুখে কাঁটাতারের একটি ফটক স্থাপন করা হয়েছে এবং নির্দেশাসংবলিত ব্যানার সাঁটানো হয়েছে। কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সুমন আচার্য গতকাল বিকেল চারটায় এ নির্দেশনা জারি করেন। এর আগে সাদা পাথর এলাকায় পর্যটনকেন্দ্রিক ব্যবসায়ী ও পর্যটন সেবাসংশ্লিষ্ট সংগঠন এবং জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে তিনি এক সভা করেন।

সাদা পাথর পর্যটনকেন্দ্র।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ভোলাগঞ্জ এলাকায় সীমান্তের ধলাই নদের উৎসমুখে সাদা পাথর এলাকার অবস্থান। ওপারে ভারতের মেঘালয় রাজ্যের পাহাড়ি অঞ্চল লুংলংপুঞ্জি ও শিলংয়ের চেরাপুঞ্জি, এপারে ধলাই নদের উৎসমুখের বিস্তৃত এলাকায় সারা বছর নদের পানি প্রবহমান থাকে। বৃষ্টিবহুল চেরাপুঞ্জির পাদদেশ থেকে বর্ষায় ঢলের পানির সঙ্গে পাহাড়ের পাথরখন্ড এপারে নেমে আসে। ২০১৭ সালে পাহাড়ি ঢলে পাথর জমা হওয়ায় কোম্পানীগঞ্জের তৎকালীন ইউএনও আবুল লাইছ পাথর সংরক্ষণ করেন। সেই থেকে এলাকাটি ‘সাদা পাথর’ পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে পরিচিতি পায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *