সর্বশেষ :

সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান

পর্যটকের দেখা নেই সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি :

করোনা মহামারির কারণে দীর্ঘ আট মাস বন্ধ থাকার পর গত ১ নভেম্বর থেকে পুনরায় খুলে দেওয়া হলেও পর্যটক নেই হবিগঞ্জের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে। সাপ্তাহিক বন্ধের দিন শুক্র ও শনিবার কিছু দর্শনার্থীর দেখা মিললেও অন্যান্য দিন দর্শনার্থীর সংখ্যা থাকে হাতেগোনা।

উদ্যানে অলস সময় কাটছে গাইড ও কর্মচারীদের। তারা মনে করেন, শীত নামার সঙ্গে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হওয়ার আশংকায় বেশিরভাগ মানুষের মধ্যে বেড়ানোর আগ্রহ নেই।

সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান

অন্যান্য বছর শীত মৌসুমে হবিগঞ্জের সাতছড়ি উদ্যানে বিপুলসংখ্যক পর্যটক সমাগম হয়ে থাকে। কিন্তু এবার পর্যটক শূন্য এ উদ্যান।

করোনা মহামারি শুরুর আগে এ বছরের শুরুতে প্রতিদিন গড়ে ১৫০-২০০ জন পর্যটকের উপস্থিতি ছিল। এখন গড়ে মাত্র ৩০-৪০ জন আসছেন। প্রতিদিন বিকেল বেলা কিছু পর্যটক দেখা যায়। প্রবেশপথে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার নির্দেশিকা থাকলেও বেশিরভাগই মাস্ক ব্যবহার করেন না। অনেকের মুখে মাস্ক থাকলেও তা যথাস্থানে রাখেন না।

সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান

শীত মৌসুমে সাতছড়ি ভ্রমণ বেশ আরামদায়ক। কিন্তু, করোনা আতঙ্কে ভ্রমণ পিয়াসীদের মনে সে আনন্দ নেই। আগেকার মত সেই কোলাহল নেই। চারপাশ অনেকটা নীরব, নিস্তব্ধ।

সাতছড়ি রেঞ্জের রেঞ্জার মাহমুদ হাসান জানান, করোনাভাইরাসের পর সাতছড়ি খোলা হলেও পর্যটক সংখ্যা আশানুরূপ নয়। আইনশৃঙ্খলা প্রসঙ্গে বলেন, ‘সাতছড়িতে এখন পর্যটকদের জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মাঝে মধ্যে দায়িত্ব পালন করছে। এছাড়া আমাদের স্বেচ্ছাসেবকরা আছেন। কোনও ধরনের সমস্যা দেখলে পুলিশকে ফোন দেওয়া হলে তারা আসে। পর্যটকদের নিরাপত্তায় স্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প বসানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’

সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান

টিকিট বিক্রির সুপারভাইজার মো. আতাউর রহমান জানান, সাতছড়িতে পর্যটক আকর্ষণের জন্য নতুন নতুন প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। তার আশা, এগুলো বাস্তবায়ন হলে পর্যটকের সংখ্যা অনেক গুণ বৃদ্ধি পাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *